Search

পূজা বার্ষিকী "করুণাধারা"-১৪২৮ এর লেখকসূচি



“আশ্বিনের শারদ প্রাতে

বেজে উঠেছে আলোকমঞ্জির,

ধরনীর বহিরাকাশে অন্তরিত মেঘমালা,

প্রকৃতির অন্তরাকাশে জাগরিত

জ্যোতির্ময়ী জগতমাতার আগমন বার্তা,

আনন্দময়ী মহামায়ার পদধ্বনি অসীম ছন্দে বেজে উঠে রুপলোক ও রসলোকে আনে নবভাব মাধুরীর সন্জীবন,

তাই আনন্দিতা শ্যামলী মাতৃকার চিন্ময়ীকে মৃন্ময়ীতে আবাহন।

আজ চিছ্বক্তি রূপিনী বিশ্বজননীর শারদস্মৃতি মন্ডিত প্রতিমা মন্দিরে মন্দিরে ধ্যানমহিতা।।"



পিতৃপক্ষ অবসান কল্পে মাতৃপক্ষের পূণ্য মুহুর্তে বঙ্গ জীবনের শ্রেষ্ঠ অঙ্গ দূর্গোৎসবের শুভ সূচনা।

প্রতিবছরের মতো এবারেও কোটি কোটি বাঙালি এবং অসংখ্য অবাঙালী মেতে উঠেছে পুজোর আনন্দে । বাঙালিদের মনে এই উৎসবের সূচনা হয় বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কণ্ঠে মহিষাসুরমর্দিনী পাঠ শুনে। এরপর আসে ষষ্ঠীর সকাল। নতুন জামা, খাওয়াদাওয়া ও প্যান্ডেল ঘোড়ার সাথে প্রায় সব বাঙালির ঘরে পড়ার টেবিলে অথবা ক্লান্ত দুপুরে খাটের ওপর কোনা ভাঁজ করা পাতায় রাখা থাকে পুজো সংখ্যা। গল্প পড়ার লোভ ও ভালোবাসা সব বাঙালিদের এক সুতোয় বেঁধে দিয়েছে এই শারদ সংখ্যা গুলি।



সাত ফোড়ন পত্রিকা প্রকাশ করছে দ্বিতীয় বর্ষের পূজা বার্ষিকী "করুণাধারা"-১৪২৮ । রহস্য গল্প ও নতুন ধরনের লেখক লেখিকাদের সাহিত্য আবারও ভরিয়ে তুলবে পাঠকদের মনকে। এছাড়াও কিছু স্বনামধন্য কবির কবিতা ও রম্যরচনা আপনাদের নিয়ে যাবে চিন্তার রূপসাগরে। করোনার কঠিন সময় সাত ফোড়ন পত্রিকার হাত ধরে ঘুরে আসবেন গঙ্গাসাগর ও পুরুলিয়া। ষষ্ঠী থেকে দশমী হবে জমিয়ে খাওয়াদাওয়া আর পুজোয় শরীর ঠিক রাখতে থাকবে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ। জেনে নিন কোন ওয়েব সিরিজ রোমাঞ্চ তৈরি করবে আপনার পুজোর ফ্রী সময়ে। কেমন যাবে আপনার পুজোর মাস তা আগেই জেনে নিন সাত ফোড়ন পত্রিকার শারদ সংখ্যায়।



সম্পূর্ণ অন্য স্বাদে সাত ফোড়ন পত্রিকা আপনাদের সামনে নিবেদন করছে পূজা বার্ষিকী ১৪২৮, করুণাধারা। অতি যত্নে আপনাদের জন্য নতুনভাবে সাজানো হয়েছে সাত ফোড়নের প্রতিটি পাতা। আশা করি, প্রতিবারের মত এই সংখ্যাও পাঠকদের মন কাড়বে। আমরা, এই শারদ সংখ্যা পড়ে আপনাদের অনুভূতি জানার অপেক্ষায় রইলাম।



সায়ন সাহা

সম্পাদক,

সাত ফোড়ন পত্রিকা












157 views0 comments